আপনার স্বাস্থ্য রক্ষায় ১০ টি উপাদান যুক্ত খাদ্য তালিকার নাম


আমাদের প্রতিদিনের কাজকর্ম  চালিয়ে যাবার  জন্যে ও শরীরকে  সুস্থ  রাখার জন্যে আমাদের  প্রতিদিন  সঠিক খাদ্য  গ্রহণ করা উচিত। সঠিক  খাদ্য সঠিক  পুষ্টি বহন করে। সঠিক পুষ্টি সমৃদ্ধ খাবার মানব দেহকে সুস্থ ও কর্মক্ষম রাখতে সাহায্য করে। 

খাদ্য হলো সেসব পদার্থ যা খেয়ে জীব জীবন  বাঁচানো থেকে  শুরু  করে মানসিক ভাবে সুস্থ থাকে। অন্যভাবে বলা যায়, খাদ্য হলো বিশেষায়িত গুণ সমৃদ্ধ (কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন, ফ্যাট, ভিটামিন, খণিজ ও পানি ) খাবার  যা জীবের শক্তি বৃদ্ধিতে সাহায্য করে ও সুস্থ এবং কর্মক্ষম  রাখে। 

খাদ্য গ্রহণ প্রক্রিয়ায় মৌলিক খাবারের উপর গুরুত্ব দিতে হবে। তার পাশাপাশি অন্যান্য খাবারও সঠিক পরিমাণে খেতে হবে। আমরা খাবার তো খাচ্ছি কিন্তু সেগুলো সঠিক কিনা তা আমাদেরকে যাচাই করে নিতে হবে। 

খাদ্য যাচাই  করার জন্য খাদ্যের ছয়টি উপাদান বিদ্যমান কিনা সেটা খেয়াল রাখতে হবে।খাদ্যের উপাদান ৬টি (কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন, ফ্যাট, ভিটামিন, খনিজ ও পানি )। এই ৬টি উপাদান সমৃদ্ধ খাবার হল সুষম খাদ্য। আমাদের শরীর বৃদ্ধি ও সক্রিয় রাখতে এই ছয়টি উপাদান সমৃদ্ধ খাবার গ্রহণ করতে হবে।

খাদ্যের প্রয়োজনীয়তাঃ খাদ্যের প্রয়োজনীয়তা ব্যাপক। মানুষের বেঁচে থাকার জন্য খাদ্য অপরিহার্য। মানুষের দেহে যেসব  কারণে খাদ্য প্রয়োজন তা হলো –

  • ক্ষুধা নিবারন করে 
  • জীব-কে সক্রিয় রাখে 
  • জীবিত ও সুস্থ রাখে 
  • শরীর বৃদ্ধির জন্য নতুন কোষ এবং টিস্যু নির্মাণ  করে 
  • সংক্রমণ প্রতিরোধ করে
  • সঠিক খাবার শরীরের সঠিক ওজন বৃদ্ধি-তে সহায়তা করে 

খাদ্য তালিকায় প্রয়োজনীয় ১০টি খাবার 

সারাদিন তো আমরা অনেক  কিছুই খেয়ে থাকি কিন্তু কোন খাবার কতটা খাওয়া প্রয়োজন সেটা আমরা অনেকেই  জানি না। সব খাবার আমাদের দেহের জন্য ঠিক না। যেইসব খাবার আমাদের উপকার করে সেইসব খাবার আমাদের প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় অবশ্যই রাখা দরকার। আর আজকে বলবো এমনি  ১০টি খাবারের কথা –

. দুধ

দুধ একটি গুরুত্বপূর্ণ খাবার৷ আমরা যতগুলো খাবার দেখি তার মধ্যে অন্যতম খাবার হলো দুধ। কারণ দুধে আছে প্রয়োজনীয় সেই সব উপাদান যেগুলো মানব দেহের জন্য অত্যন্ত উপকারী।  

দুধকে বলা হয়ে থাকে সুষম খাদ্য। কারণ দুধে আছে প্রয়োজনীয় ৬টি উপাদান যেগুলো আমাদের শরীরের জন্যে দরকার। 

যে কোন  বয়সী মানুষের জন্য দুধ আবশ্যক উপাদান। এতে রয়েছে অনেক পুষ্টিগুণ যেমন: ক্যালসিয়াম, পটাশিয়াম, ফসফরাস, প্রোটিন, ভিটামিন এ, ভিটামিন বি-১২, কোলেস্টেরল, নিয়াসিন ও রিবোফ্লাভিনস এর মতো উপাদান।

দুধ
দুধ

দুধের উপকারিতা গুলো হলো

  • মাংসপেশি গঠনে সহায়তা করে 
  • শরীরে এনার্জি বাড়াতে বিরাট সহায়তা করে 
  • পাকস্থলী পরিষ্কারের পাশাপাশি রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি করে 
  • প্রতিদিন দুপুরে খাবারের পরে বা বিকেলে এক গ্লাস গরুর দুধ খেতে পারলে নিমিষেই ক্লান্তি দূর হয়ে যায় 
  • দুধে রয়েছে প্রচুর ক্যালসিয়াম যা শরীর কে সবল রাখতে ও দুর্বলতা দূর করতে সাহায্য করে 

. ডিম 

দেহের জন্য উপকারী খাবার গুলোর মধ্যে ডিম অন্যতম। কিন্তু আমাদের মধ্যে অনেকেই জানে না এর উপকারিতা। বিশেষ করে বাড়ন্ত বয়সী ছেলেমেয়েদের জন্যে ডিম অত্যন্ত উপকারী। উপকারী হওয়া সত্ত্বেও অনেক ছেলেমেয়েই ডিম খেতে অপছন্দ করেন।

একটা সেদ্ধ ডিমে রয়েছে অনেক পুষ্টিগুণ যেমন: শর্করা, প্রোটিন, স্নেহ পদার্থ, ভিটামিন-এ, থায়ামিন (বি১), ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, পটাশিয়াম সহ আরো অনেক উপাদান যেগুলো শরীর ভালো রাখার জন্য অনেক উপকারি। বাড়তি বয়সের ছেলেমেয়েদের খাবারে প্রতিদিন একটা সেদ্ধ ডিম রাখা দরকার৷

ডিম
ডিম

ডিমের উপকারিতা গুলো হলো

  • এটি ওজন কমাতে সাহায্য করে 
  • পেশির ব্যথা কমাতে ও ক্যান্সার প্রতিরোধে সাহায্য করে
  • হাড় ও দাঁত শক্ত রাখে
  • চোখের জ্যোতি বাড়াতে সাহায্য করে 
  • শরীরের দুর্বলতা কমায় 
  • এটি শরীরের রোগ প্রতিরোধ বাড়ায়
  • স্মৃতিশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে

. বাদাম 

বাদাম আমরা অনেকেই খাই কিন্তু এর গুনাগুন অনেকেই জানি না। পুষ্টিগুণ ও উপকারিতার দিক থেকে বাদাম অনেক প্রয়োজনীয় একটা খাবার। অনেক ধরনের বাদাম রয়েছে যেমনঃ কাঠ বাদাম, চিনাবাদাম, কাজুবাদাম, পেস্তা বাদাম ও আখরোট বাদাম ইত্যাদি৷ বাদামে প্রচুর পরিমানে প্রোটিন, ফাইবার, ক্যালসিয়াম, আয়রন, সোডিয়াম, পটাসিয়ামসহ অনেক ধরনের ভিটামিন রয়েছে যা আমাদের শরীরের জন্য অনেক উপকারী৷ বাদাম হল কম র্কাবোহাইড্রেট যুক্ত খাবার৷ সব ধরনের মানুষের বাদাম খাওয়া উচিত৷

বাদাম
বাদাম

বাদামের উপকারিতা গুলো হলো

  • শরীরের দুর্বলতা হ্রাস করে
  • রোগ প্রতিরোধ করে
  • শরীরে প্রচুর শক্তি বাড়ায়
  • ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করে
  • চুলের সৌন্দর্য বাড়াতে সাহায্য করে
  • স্মৃতিশক্তি বৃদ্বিতে সাহায্য করে
  • ক্যান্সার প্রতিরোধ করে
  • হার্টকে সুস্থ ও সবল রাখে

. শাকসবজি

সবুজ শাকসবজিতে রয়েছে আঁশ, প্রচুর পরিমানে ভিটামিন ও খনিজ উপাদান৷ বেশী পরিমানে ফাইবার থাকায় পেট ভরাও থাকে অনেকক্ষণ৷ ফলে খিদে কম লাগে ও ওজন কমে৷

শাক সবজি
শাক-সবজি

শাকসবজির উপকারিতা গুলো হলো

  • ওজন কমাতে সাহায্য করে
  • শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়
  • ভালো চুল ও ত্বকের জন্য অপরিহার্য

. খেজুর

খেজুর অত্যন্ত সুস্বাদু, স্বাস্থ্যকর ও রুচিশীল একটি খাবার৷ অনেকেই আছে খেজুর শুধু রমজান মাসে খেয়ে থাকে কিন্তু খেজুর সারাবছরই খাওয়া উচিত৷ প্রতিদিন রাতে অথবা সকালে ৩/৪ টি খেজুর খেলে অনেক ভালো ফল পাওয়া যায়৷ যা শরীর সুস্থ্য রাখার জন্য উপযুক্ত ভূমিকা পালন করে৷ খেজুরে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন, ফাইবার, ক্যালসিয়াম ও আরও পুষ্টি উপাদান৷

খেজুর
খেজুর

খেজুরের উপকারিতা গুলো হলো

  • ত্বক ভালো রাখতে সাহায্য করে
  • দৃষ্টিশক্তি ভালো রাখে
  • শরীরে প্রচুর শক্তি বাড়াতে সাহায্য করে
  • দুর্বলতা কমায়
  • ক্যান্সারসহ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে

. কলা

কলা হল খুব জনপ্রিয় একটি ফল যা বারো মাসেই পাওয়া যায় এবং স্বল্পদামি ফলও বটে৷ পুষ্টিবিদরা বলেন, প্রতিদিন দু’টি করে কলা খাওয়া শরীরের জন্য অনেক উপকারী৷ প্রতি ১০০ গ্রাম পাকা কলাতে রয়েছে জল, আমিষ, খনিজ, লবণ, ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, ভিটামিন এ ও অল্প ভিটামিন বি কমপ্লেক্স৷

কলা
কলা

কলার উপকারিতা গুলো হলো

  • হৃদযন্ত্র ভালো রাখে ও শরীর সুস্থ রাখে
  • খাদ্য হজমে সহায়তা করে ও পেট পরিষ্কার রাখে
  • শরীরে শক্তি যোগাতে সহায়তা করে
  • মানুষের মনকে সতেজ রাখে
  • মানসিক চাপ কমায়

. গাজর

গাজরকে আমরা একটি স্বাস্থ্যকর খাবার হিসেবে জানি৷ গাজরকে বলা হয়ে থাকে সুপার ফুড৷ কারণ গাজরে রয়েছে অনেক পুষ্টি যা মানুষের শরীরের জন্য অনেক উপকারী৷ অনেকেই আছে গাজর কাঁচা খেতে পছন্দ করে আবার অনেকে রান্না করে খায়৷ তবে আপনি যেভাবেই খেয়ে থাকেন না কেন গাজর অনেক উপকার করে থাকে মানব শরীরকে৷ প্রতিদিন গাজর খাওয়ার অভ্যাস করতে পারলে আরও ভালো৷

গাজর
গাজর

গাজরের উপকারিতা গুলো হলো

  • শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়
  • ক্যান্সার প্রতিরোধে সাহায্য করে
  • উজ্জ্বল ত্বক ও রোদে দাগ পড়া থেকে সাহায্য করে

. আপেল

আমাদের মধ্যে অনেকেরই আপেল একটি প্রিয় ফল৷ আপেলে প্রায় ৮০% পানি থাকে যা শরীরের জন্য অনেক প্রয়োজন৷ আপেলে আছে ভিটামিন সি, কে, ই, ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, পটাসিয়াম, আয়রনসহ অনেক পুষ্টি উপাদান৷

আপেল
আপেল

আপেলের উপকারিতা গুলো হলো

  • ডায়রিয়া ও কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে
  • শরীর ও মনকে সতেজ রাখে এবং শক্তি বাড়ায়
  • ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ায়
  • দাঁত ভালো রাখে
  • হজম শক্তি বাড়াতে সাহায্য করে
  • ওজন কমাতে সাহায্য করে

. টমেটো

টমেটো একটি বহুল পরিচিত সবজি এবং সব ধরনের পুষ্টি গুন সমৃদ্ধ৷ টমেটো দুইভাবেই খাওয়া যায়৷ কাঁচা টমেটো রান্না করে খাওয়া যায় আর পাকা টমেটো সালাত করে খাওয়া হয়৷ প্রতিদিন একটি করে টমেটো খেতে পারলে অনেক ভালো উপকার পাওয়া যায়৷

টমেটো
টমেটো

টমেটোর উপকারিতা গুলো

  • বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধ করে
  • খাওয়ায় রুচি বৃদ্ধি করে
  • কিডনীতে পাথর জমতে রোধ করে
  • পাকস্থলী পরিষ্কার রাখে
  • ত্বক সুস্থ রাখে
  • দেহের হাড় মজবুত রাখে

১০. মাছ

মাছ অনেক জনপ্রিয় খাবার বাংলাদেশে৷ মাছে অনেক প্রোটিন, ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, আয়রন ও ভিটামিন রয়েছে৷ তাই প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় মাছ রাখা উচিত বিশেষ করে ছোট মাছ৷ কারণ ছোট মাছে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ও অনেক ক্যালসিয়াম৷ শতকরা ২০ ভাগ আমিষ থাকে মাছে৷

মাছ
মাছ

তবে হ্যাঁ মাছের উপকারের পাশাপাশি কিছু ক্ষতি কারক দিক রয়েছে, অবশ্য সব মাছে না৷ সামুদ্রিক মাছে ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড থাকে তাই এই ধরনের মাছ কম খাওয়াই ভালো৷ 

মাছের উপকারিতা গুলো

  • স্ট্রোক প্রতিরোধে সহায়তা করে
  • হজম শক্তি বাড়ায়
  • স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি করে
  • শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়

শেষ কথা

উপরোক্ত এই খাবারগুলো আমাদের খাবারের তালিকায় রাখা প্রয়োজন৷ তবে এই খাবারগুলা ছাড়াও আরো অনেক খাবার আছে যেগুলো আমাদের গ্রহণ করা উচিত৷ যদি প্রতিদিন এই খাবারগুলা খাওয়া নাও যায় তাহলে ২/৩ দিন পর পর এই খাবার গুলো খেতে হবে৷ আমরা সবাই সুস্থ থাকতে চাই কিন্তু আমরা কেউ সঠিক খাদ্য তালিকা অনুসরণ করি না৷ তবে আমাদের ভালো থাকতে হলে অবশ্যই সঠিক খাদ্য তালিকা ঠিক করে খাদ্য গ্রহণ করতে হবে৷ 

আশা করি, খাবারের তালিকায় এই ১০টি উপাদান নিশ্চিত করে আপনার স্বাস্থ্য রক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে৷ আপনাদের যদি অন্য কোন কিছু সম্পর্কে জানার আগ্রহ থাকে তাহলে আমাদের কমেন্ট করে জানাতে পারেন৷

Explore more

বিশ্বের সেরা ১০ ফুটবল খেলোয়ার

বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু ১০ জলপ্রপাত

Recent Posts