শীর্ষ জনপ্রিয়তায় দশ ক্রিকেটার


ক্রিকেট নিয়ে কথা শুরু করলে হয়তো শেষ করা যাবে না। ক্রিকেট শুধু বাংলাদেশ এই না, পুরো বিশ্বে এক‌টি অন্যতম জনপ্রিয় খেলা বলা চলে। যদিও পরিসংখ্যানে দেখা যায়, সেরা ১০ জন ক্রিকেটার এর মধ্যে ৮ জন ভারতীয়।ভার্চুয়াল জগতে ও তাদের জনপ্রিয়তার কমতি নাই।

আজ আমরা সেই দশ জন ক্রিকেটার দের নিয়ে জানব।আমাদের অনেকেরই এই নিয়ে আগ্রহের শেষ নেই। আজ আশা করছি এই আগ্রহের অবসান ঘটবে।চলুন শুরু করা যাক-

১)বিরাট কোহলি:

বিরাট কোহলি
বিরাট কোহলি

ভারতীয় দলের বর্তমান অধিনায়ক বিরাট কোহলি। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তার অভিষেকের কথা না বললেই নয়।বিশ্লেষক রা বলেন,পুরো বিশ্বের এই ক্রিকেট তারকা কোন ইনজুরি তে না পরলে শচীন এর রেকর্ড ভেঙ্গে দিতে পারবেন।তিনি ১৯৮৮ সালে জন্মগ্রহণ করেন।তার পিতার নাম প্রেম কোহলি।

২০১৩ সালে প্রথমবারের মতো ওয়ানডে আইসিসি র প্রথম স্থানে পৌঁছে যান। ২০০৮ সালে আইসিসি অনুর্ধ্ব ১৯ এ তিনি প্রথম ভারত দলের অধিনায়ক হিসেবে খেলেন।২০১১ সালে টেস্ট অভিষেক করেছিলেন তিনি এবং ২০১৩ সালে টেস্টে শতরান করেছিলেন তিনি।

 সোশাল মিডিয়ায় তার ফলোয়ার অনেক। তাকে ফেসবুকে ফলো করেন ৩৭ মিলিয়ন এর ও বেশি মানুষ, টুইটারে ফলো করেন ৩১ মিলিয়ন লোক, ইন্সটাগ্রামে ফলো করেন ৪০ মিলিয়ন মানুষ। তার স্ত্রী র নাম আনুশকা শর্মা। তিনি ও একজন জনপ্রিয় অভিনেত্রী।বর্তমানে তাদের এক‌টি কন্যা সন্তান রয়েছে।

২)শচীন তেন্ডুলকার:

শচীন তেন্ডুলকার
শচীন তেন্ডুলকার

ক্রিকেট ইতিহাসে সেঞ্চুরি র কথা আসলেই প্রথম যার নাম আসে সে হচ্ছে ভারতীয় ক্রিকেটার শচীন তেন্ডুলকার। তার জন্ম ২৪ শে এপ্রিল,১৯৭৩ সালে। বাবা রমেশ তেন্ডুলকর এবং মা রজনী তেন্ডুলকার এর ছোট ছেলে শচীন।দাদা অজিত তেন্ডুলকার শচীন কে অনেক সাহায্য করেছেন বড় মাপের ক্রিকেটার হতে। তার পড়াশোনা দশম শ্রেণী পর্যন্ত। 

তিনি প্রথম জীবনে টেনিস প্রেমি ছিলেন। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত পরবর্তীতে তিনি টেনিস খেলা নিয়ে এগুতে পারেননি। তার দাদা তাকে ক্রিকেট খেলায় ভর্তি করে দেন কোচ রমাকান্ত আচারেকরের কাছে। তারপর তিনি সারদাশ্রম বিদ্যামন্দির হাইস্কুল এর জুনিয়র ক্রিকেটার এ চান্স পান।মাত্র ১৫ বছর বয়সে মুম্বাই দলের হয়ে খেলেন তিনি।১৯৮৮ সালে তিনি প্রথম সেঞ্চুরি করেন।এভাবে তিনি সেঞ্চুরি বার সেঞ্চুরি করেন।এখনো এই রেকর্ড কেউ ভাঙতে পারেননি।১৯৯৫ সালে অঞ্জলি তেন্ডুলকার কে বিয়ে করেন। তার কন্যা র নাম সারা তেন্ডুলকার এবং পুত্রের নাম অর্জুন তেন্ডুলকার।

তার ফেইসবুক ফলোআর ২৮ মিলিয়ন, টুইটার ফলোআর ৩০ মিলিয়ন এবং ইন্সটাগ্রাম ফলোআর ১৬ মিলিয়ন।তিনি বামহাতে লিখলেও বেট করেন ডানহাতে।

৩)মহেন্দ্র সিং ধোনি:

মহেন্দ্র সিং ধোনি
মহেন্দ্র সিং ধোনি

 তৃতীয় নাম্বার যাকে না বললেই নয় তিনি হলেন ভারতীয় ক্রিকেটার মহেন্দ্র সিং ধোনি। তার জন্ম ৭ জুলাই,১৯৮১ সালে।পান সিং ও দেবকী দেবী এর একমাত্র ছেলে  ধোনি। তার এক‌টি বোন ও রয়েছে নাম জয়ন্তী।

ধোনি  একাধিক সম্মাননা ও পুরস্কার পেয়েছেন। তিনি ই প্রথম ভারতীয় দের মধ্যে ২০০৮ ও ২০০৯ সালে আইসিসি একদিনের ক্রিকেটার এর বর্ষসেরা পুরস্কার পান।প্রথমে ধোনি ফুটবল খেলতেন পরে তার কোচ তাকে ক্রিকেট খেলায় প্রেরণ করেন।তখন তিনি ক্রিকেটে এত ভালো না করলেও উইকেট রক্ষকে তিনি প্রধান দায়িত্ব পালন করেন।পরবর্তীতে ১৯৯৭-৯৮ এ তিনি অনুর্ধ্ব ১৬ চেম্পিয়ানশিপে ট্রফি জয় করেন।এছাড়াও তিনি পদ্মাভূষন,পদ্মশ্রী, আইসিসি এওয়ার্ড ফর স্পিরিট অফ ক্রিকেট সম্মাননা অর্জন করেন।২০১০ সালে তিনি সাক্ষী রাওয়াতকে বিয়ে করেন। বর্তমান এ তিনি চেন্নাই সুপার কিংস এর দলে নিযুক্ত আছেন।

তাকে ফেইসবুকে ২১ মিলিয়ন মানুষ ফলো করেন, টুইটারে ৮ মিলিয়ন এবং ইন্সটাগ্রাম এ ১৬ মিলিয়ন মানুষ ফলো করেন।

৪)রোহিত শর্মা:

রোহিত শর্মা
রোহিত শর্মা

 আন্তর্জাতিক ভারতীয় ক্রিকেটে রোহিত শর্মা একজন অন্যতম সেরা ওপেনার।জন্ম ১৯৮৭ সালে, মহারাষ্ট্রে।তার বাবার নাম গুরুনাথ শর্মা এবং মায়ের নাম পুর্নিমা শর্মা। তিনি একজন ডানহাতি বেটসমেন, এছাড়াও তার বোলিং এর ধরণ ডানহাতি অফ ব্রেক।বর্তমানে তিনি মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স দলে নিযুক্ত আছেন। 

এছাড়াও ওডিআই ক্রিকেটে তিনি তিনবার ডাবল সেঞ্চুরি অর্জন করেন।সর্বোচ্চ রানের ইনিংস খেলার বিশ্ব রেকর্ড গড়েছেন তিনি।২০১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপ এ তিনি সহ অধিনায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন এবং ১২২ রান অর্জন করেন। ২০১৫ সালে তিনি রিতিকা সাজদেহ কে বিয়ে করেন।২০১৮ সালে তাদের একটি কন্যা সন্তান হয়।তিনি ২০১৫ সালে অর্জুনা এওয়ার্ড এবং ২০২০ সালে রাজিব গান্ধী খেল রত্না এওয়ার্ড।এছাড়াও তিনি আইসিসি  ওডিআই টিম অফ দা এওয়ার্ড পান টানা ৫ বার (২০১৪,২০১৬,২০১৭,২০১৮ এবং ২০১৯)।

তার ফেইসবুকে ফলোআর ১১ মিলিয়ন, টুইটারে ফলোআর প্রায় ১৫ মিলিয়ন এবং ইন্সটাগ্রাম ফলোআর ১১ মিলিয়ন। 

৫)সুরেশ রায়না: 

সুরেশ রায়না
সুরেশ রায়না

এখন যার নাম বলব তিনি হলো সুরেশ রায়না। যদিও তারকাদের ভিরে তিনি প্রায় হারিয়ে যাচ্ছেন। তার জন্ম ১৯৮৬ সালে উত্তর প্রদেশে।তার বাবার নাম ত্রিলোকি চাঁদ। তিনি একজন অবসর প্রাপ্ত সামরিক কর্মকর্তা।তার বড় তিন ভাই এবং এক বোন আছে।

মাএ ১৮ বছর বয়সে ইন্ডিয়ান অয়েল কাপ এ শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে আন্তর্জাতিক মেচ এ তার অভিষেক ঘটে(২০০৫ সালে)।বর্তমানে তিনি ভারত জাতীয় দলের সদস্য হিসেবে আছেন।টেস্ট,ওডিআই এবং টুয়েন্টি ২০ আন্তর্জাতিক খেলেন তিনি।তিনি ঘরোয়া ক্রিকেটে উত্তর প্রদেশের দলের হয়ে খেলেছেন।আই পি এল চেন্নাই সুপার কিংস এর সহ অধিনায়ক দায়িত্বে ছিলেন এই সুরেশ রায়না।২০১৪ সালে তিনি প্রিয়ঙ্কা কে বিয়ে করেন।২০২০ সালে ১৫ ই আগস্ট ভারতের  স্বাধীনতা দিবসে তিনি অবসর গ্রহণ করেন মাত্র ৩৩ বছর বয়সে।নতুন দের সুযোগ দিতে তিনি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন।একই দিনে মহেন্দ্র সিং ধোনি এবং সুরেশ রায়না অবসর নেন।২০১৮ সালে ইংল্যান্ড এর বিপরীতে মেচ টিই তার শেষ আন্তর্জাতিক মেচ।

তার ফেইসবুক ফলোআর ৩.১ মিলিয়ন, টুইটার ফলোআর ১৬.৭ মিলিয়ন এবং ইন্সটাগ্রাম ফলোআর প্রায় ৯ মিলিয়ন। 

৬)যুবরাজ সিং:

যুবরাজ সিং
যুবরাজ সিং

যুবরাজ সিং ভারতীয় ক্রিকেটার যিনি ছয় বলে ছক্কা করে বিশ্বরেকর্ড করেছিলেন ক্রিকেট ইতিহাসে। তার জন্ম ১৯৮১ সালে।তার পিতা ছিলেন চলচ্চিত্র তারকা যোগরাজ সিং। ওয়ানডে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ২০০০ সালে অভিষেক ঘটে ভারতীয় এই ক্রিকেটার এর।

২০১১ সালের আই সি সি ক্রিকেটে তিনি মেন অফ দা টুর্নামেন্ট ছিলেন। ২০০৭ সালে বিশ্বকাপ টি টোয়েন্টিতে তিনি ছয় বলে ছক্কা করেছিলেন ইংল্যান্ড এর বিপরীতে।২০০০ থে‌কে ২০১৭ সাল পর্যন্ত তিনি ক্রিকেট দলে ছিলেন। ২০১১ সালে তার বাম ফুসফুসে কেন্সার যুক্ত টিউমার ধরা পরে।২০১২ সালে চূড়ান্ত কেমোথেরাপি শেষে তিনি ভারতে ফিরে আসেন। তিনি অর্জুন পুরস্কার, পদ্মশ্রী পুরস্কার এবং চতুর্থ সর্বোচ্চ বেসামরিক পুরস্কার লাভ করেন।২০১৪ সালের আই পি এল এ সর্বোচ্চ দামে ১৪ কোটি টাকা দিয়ে বেঙ্গালুরু তাকে দলে নিয়েছিলেন এবং ২০১৫ সালে দিল্লি ১৬ কোটি টাকা দিয়ে তাকে দলে নেন।২০১৭ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ এর বিপক্ষে ভারতের হয়ে খেলেন এবং এটাই ছিল তার শেষ খেলা।

২০১৯ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর ঘোষণা করেন।২০১৬ সালে হাজেল কিচ কে তিনি বিয়ে করেছিলেন।তার ফেইসবুক ফলোআর ১৪ মিলিয়ন, টুইটার ফলোআর ৫ মিলিয়ন এবং ইন্সটাগ্রাম ফলো করেন প্রায় ৮ মিলিয়ন মানুষ। 

৭)হরভজন সিং:

হরভজন সিং
হরভজন সিং

 ভারতের অন্যতম ক্রিকেট খেলোয়াড় হলেন হরভজন সিং।তার জন্ম ১৯৮০ সালে ভারতের পাঞ্জাবে।তার বাবার নাম সরদার সরদেভ সিং।তার বাবা একজন বেবসায়ী ছিলেন। তার আর ও ৫ বোন ছিলো।প্রথমে বেটসমেন থাকলে ও পরবর্তীতে তিনি একজন বোলার হয়েছিলেন।

১৯৯৮ সালে তিনি প্রথম একদিনের টেস্ট মেচ খেলেন।তার বোলিং একশন তাক লাগিয়ে দেয়ার মতো ছিলো। ২০১৫ সালে তিনি শ্রীলঙ্কা এর বিপরীতে লাস্ট টেস্ট মেচ খেলেন।তার স্ত্রীর নাম অভিনেত্রী গীতা বাসরা।২০১৫ সালে তার বিয়ে হয়।তাদের এক‌টি কন্যা রয়েছে। হরভজন একজন ভালো গায়ক ও।তিনি ফিল্ম এও অভিনয় করেছেন। ২০১৯ এ তিনি চেন্নাই সুপার কিংস দলের হয়ে খেলেছিলেন। 

তাকে ফেইসবুকে ফলো করেন প্রায় ৭ মিলিয়ন মানুষ,তার টুইটার ফলোআর ১০ মিলিয়ন এবং ইন্সটাগ্রাম ফলোআর ৩.৬ মিলিয়ন। 

৮)এবি ডি ভিলিয়ার্স: 

এবি ডি ভিলিয়ার্স
এবি ডি ভিলিয়ার্স

এবি ডি ভিলিয়ার্স একজন দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেট খেলোয়াড়। তার জন্ম ১৯৮৪ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার প্রিটোরিয়ায়।তার বাবা আব্রাহাম পিডি ভিলিয়ার্স একজন ডাক্তার ছিলেন এবং মা মিলি এক‌টি রিয়েল স্টেট কম্পানি তে জব করতেন।তার দুইটি ভাই ছিলো।ইতিমধ্যে টেস্ট ক্রিকেটে ২১ টি সেঞ্চুরি অর্জন করেছেন। 

২০১১-১২ সালে মেন অফ দা সিরিজের পুরস্কারে ভূষিত হন তিনি।এছাড়াও সকল বিশ্বকাপে সর্বাধিক ছক্কা করেন তিনি।এছাড়াও এক‌টি টেস্ট মেচে সর্বাধিক আউট করে বিশ্বরেকর্ড করেন তিনি।তার স্ত্রী র নাম ডেনিয়েল সোয়ার্ত।২০১৫ সালে এক‌টি পুত্র সন্তান এর জনক হন তিনি।

২০১৮ সালে এই ডানহাতি বেটস মেন অবসর গ্রহণ করেন।তাকে ফেইসবুকে ফলো করেন প্রায় ৩.৬ মিলিয়ন মানুষ,তার টুইটার ফলোআর ৬ মিলিয়ন এবং ইন্সটাগ্রাম ফলোআর ৮ মিলিয়ন।

৯)শিখর ধবন: 

শিখর ধবন
শিখর ধবন

 শিখর ধবন একজন ভারতীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার। ১৯৮৫ সালে দিল্লিতে জন্মগ্রহণ করেন তিনি।২০১০ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক ঘটান তিনি এবং অষ্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দ্রুততম সেঞ্চুরি করেন তিনি।এছাড়াও আই পি এল এ হাইদ্রাবাদ এর অধিনায়কত্ব করেন তিনি।২০১৫ সালে বিশ্বকাপে তিনি সেঞ্চুরি করেন এবং মেন অফ দা মেচ নির্বাচিত হন।শত রান করা বিশ্বের ষষ্ঠ ব্যাটসম্যান তিনি।

তার স্ত্রীর নাম আয়েশা মুখার্জী। তাকে ফেইসবুকে ফলো করেন প্রায় ১০ মিলিয়ন মানুষ,তার টুইটার ফলোআর ৪ মিলিয়ন এবং ইন্সটাগ্রাম ফলোআর ৫ মিলিয়ন।

১০)ক্রিস গেইল:

ক্রিস গেইল
ক্রিস গেইল

 ক্রিস গেইল একজন ওয়েস্ট ইন্ডিজ খেলোয়াড়। তার জন্ম ১৯৭৯ সালে।২০০৭ থেকে ২০১০ এ তিনি অধিনায়ক ছিলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজ এর এবং তিনি সর্বাধিক বার প্রতিনিধিত্ব করেন।তিনি সেরা ব্যাটসম্যান হিসেবে অনেক রেকর্ড করেন।তিনি অলরাউন্ডার হিসেবে পরিচিত। মাত্র ১৯ বছর বয়সে জামাইকার পক্ষ হয়ে প্রথম ক্রিকেটে অভিষেক ঘটান। চারজন ক্রিকেটার এর একজন হিসেবে টেস্ট ক্রিকেটে ত্রি শতক করেছিলেন তিনি।এছারাও টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ২ টি সেঞ্চুরি ও ১৩ টি হাফ সেঞ্চুরি করেন ২০০৭ সালে। 

তার স্ত্রীর নাম নাতাশা বেরেজ এবং ২০১৬ সালে তার এক‌টি কন্যা সন্তান হয়।তাকে ফেইসবুকে ফলো করেন প্রায় ৮ মিলিয়ন মানুষ,তার টুইটার ফলোআর ৫ মিলিয়ন এবং ইন্সটাগ্রাম ফলোআর ৩ মিলিয়ন।

Explore More:

বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু ১০ জলপ্রপাত

Tanjila Jahan Any

I am a professional content writer and graphics designer . My background is CSE.

Recent Posts